আজ মঙ্গলবার | ১৫ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৫ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি | ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | বর্ষাকাল
বিজ্ঞপ্তি
  • পবিত্র ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষে সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারক বাদ 🌙 ঈদ মোবারক 🌙
আক্রান্ত

৮২৯,৯৭২

সুস্থ

৭৬৮,৮৩০

মৃত্যু

১৩,১৭২

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২,৭১৪
  • বরগুনা ১,০০৮
  • বগুড়া ৯,২৪০
  • চুয়াডাঙ্গা ১,৬১৯
  • ঢাকা ১৫০,৬২৯
  • দিনাজপুর ৪,২৯৫
  • ফেনী ২,১৮০
  • গাইবান্ধা ১,৪০৩
  • গাজীপুর ৬,৬৯৪
  • হবিগঞ্জ ১,৯৩৪
  • যশোর ৪,৫৪২
  • ঝালকাঠি ৮০৪
  • ঝিনাইদহ ২,২৪৫
  • জয়পুরহাট ১,২৫০
  • কুষ্টিয়া ৩,৭০৭
  • লক্ষ্মীপুর ২,২৮৩
  • মাদারিপুর ১,৫৯৯
  • মাগুরা ১,০৩২
  • মানিকগঞ্জ ১,৭১৩
  • মেহেরপুর ৭৩৯
  • মুন্সিগঞ্জ ৪,২৫১
  • নওগাঁ ১,৪৯৯
  • নারায়ণগঞ্জ ৮,২৯০
  • নরসিংদী ২,৭০১
  • নাটোর ১,১৬২
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৮১১
  • নীলফামারী ১,২৮০
  • পঞ্চগড় ৭৫৩
  • রাজবাড়ী ৩,৩৫২
  • রাঙামাটি ১,০৯৮
  • রংপুর ৩,৮০৩
  • শরিয়তপুর ১,৮৫৪
  • শেরপুর ৫৪২
  • সিরাজগঞ্জ ২,৪৮৯
  • সিলেট ৮,৮৩৭
  • বান্দরবান ৮৭১
  • কুমিল্লা ৮,৮০৩
  • নেত্রকোণা ৮১৭
  • ঠাকুরগাঁও ১,৪৪২
  • বাগেরহাট ১,০৩২
  • কিশোরগঞ্জ ৩,৩৪১
  • বরিশাল ৪,৫৭১
  • চট্টগ্রাম ২৮,১১২
  • ভোলা ৯২৬
  • চাঁদপুর ২,৬০০
  • কক্সবাজার ৫,৬০৮
  • ফরিদপুর ৭,৯৮১
  • গোপালগঞ্জ ২,৯২৯
  • জামালপুর ১,৭৫৩
  • খাগড়াছড়ি ৭৭৩
  • খুলনা ৭,০২৭
  • নড়াইল ১,৫১১
  • কুড়িগ্রাম ৯৮৭
  • মৌলভীবাজার ১,৮৫৪
  • লালমনিরহাট ৯৪২
  • ময়মনসিংহ ৪,২৭৮
  • নোয়াখালী ৫,৪৫৫
  • পাবনা ১,৫৪৪
  • টাঙ্গাইল ৩,৬০১
  • পটুয়াখালী ১,৬৬০
  • পিরোজপুর ১,১৪৪
  • সাতক্ষীরা ১,১৪৭
  • সুনামগঞ্জ ২,৪৯৫
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
বিশেষ প্রতিবেদন

কুড়িগ্রামে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের সবাই ব্যস্ত প্রাইভেট প্রাকটিসে

প্রসুতি মা ও শিশু মৃত্যুহার কমাতে সারাদেশে প্রসূতি মায়েদের সার্বিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নির্ভরযোগ্য সরকারি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র। দেশের প্রতিটি জেলা শহরের ন্যায় কুড়িগ্রামে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে মায়েদের জরুরী প্রসব জনিত সময়ে নরমাল ডেলিভারি কিংবা সিজারিয়ান সেকশনের মাধ্যমে সন্তান প্রসবের জন্য ২৪ ঘন্টা প্রস্তুতি রেখে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিয়েছে সরকার। 

কিন্তু মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত এম.ও ডাঃ মারুফার বিধি বহির্ভূতভাবে প্রাইভেট প্রাকটিস, স্থায়ীভাবে এনেস্থিসিয়া চিকিৎসক না থাকা, স্টাফদের বাণিজ্যিক মনোভাব এবং চিহ্নিত দালালদের অপতৎপরতার কারণে সরকারের গৃহীত এই মহতী পদক্ষেপের প্রকৃত সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে প্রসূতি মায়েরা। ভুক্তভোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে দীর্ঘদিনের অনুসন্ধানে এ-সব তথ্য পাওয়া গেছে। 

Advertisements

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল সহ বেসরকারি ক্লিনিকগুলোতে গত মার্চ মাসে নরমাল ও সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে সহস্রাধিক শিশুর জন্ম হলেও এদের সিংহভাগই সিজারিয়ান বেবি। অথচ মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে ওই একই মাসে সিজারিয়ান সেকশনের মাধ্যমে মাত্র ৪ জন শিশু, এপ্রিল মাসে ৮জন শিশু এবং মে মাসে ৭জন শিশুর জন্ম হয়।  তিন মাসে সিজারের সংখ্যা মাত্র ১৯ টি। 

মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে চিকিৎসা সেবাগ্রহীতাদের কোনো অর্থ ব্যয় করতে না হলেও বেসরকারি ক্লিনিকে প্রতিটি সিজারিয়ান অপারেশনে রোগীর স্বজনদের ওষুধ সহ ব্যয় করতে হয় ১৮থেকে ২০হাজার টাকা। কিন্ত মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মারুফার ব্যাক্তিস্বার্থ ও বাণিজ্যিক মনোভাব এবং কতৃপক্ষের উদাসীনতায় বিনেপয়সাতে ওই একই চিকিৎসা নেয়ার সুযোগ থাকার পরেও সরকারের যুগান্তকারী পদক্ষেপের সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে হাজারো প্রসুতি মা।

Advertisements

গর্ভবতী নারীরা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে প্রতি সপ্তাহের রবিবার ও বুধবার নিয়মিত চেকআপে আসেন। সে হিসেবে ১ মাসেই চেক-আপ কৃত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ৮ শতাধিক। সে হিসেবে মাসে নরমাল ডেলিভারী সহ সিজারের সংখ্যা কমপক্ষে ১৮০ থেকে ২০০ টি হওয়ার কথা অথচ প্রতি মাসে নরমাল ও সিজারিয়ান অপারেশনের সংখ্যা ৫০টিও অতিক্রম করেনি। গত ৩ মাসের পরিসংখ্যানে এ তথ্য পাওয়া গেছে। 

মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র ক্যাম্পাসে রয়েছে মেডিকেল অফিসার, নার্স/ধাত্রীদের আবাসিক ভবন। সুসজ্জিত অপারেশন থিয়েটারসহ রোগীদের জন্য রয়েছে ৩০টি বেড। আরও রয়েছে বিনে পয়সায় ওষুধ সরবরাহের সুবিধা। এতকিছু সুযোগ-সুবিধা থাকবার পরও বেসরকারি ক্লিনিক গুলোতে যেতে বাধ্য হচ্ছে রোগীরা।

এতে অর্থনৈতিক ক্ষতির শিকার হচ্ছেন দরিদ্র ও অসহায় মানুষেরা। পাশাপাশি সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের সুফল থেকে সেবা প্রত্যাশীদের বঞ্চিত করে হাতিয়ে নিচ্ছেন বিপুল পরিমান অর্থ। সেইসাথে চরিতার্থ করছেন নিজেদের অর্থলিপ্সু মনোবাসনার শতভাগ। 

অনুসন্ধানে জানা গেছে, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মারুফা শুক্রবার সারাদিন এবং সপ্তাহের অন্য দিনগুলোতে প্রতিদিন বিকেল ৩ টা থেকে রাত্রি ৮ টা পর্যন্ত আইডিয়াল ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়মিত চেম্বার প্রাকটিস্ করেন। নতুন রোগী বাবদ ৫শ, পুরাতন রোগীর ৪শ টাকা ফি নেন।

ওই সময়কালীন মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে জরুরী প্রসববেদনা জনিত কারণে আগত মুমূর্ষু রোগীদের ক্যাম্পাসে অবস্থানরত স্টাফরা রোগী ভর্তি না করে তার প্রইভেট চেম্বারে পাঠিয়ে দেয়। সেখানে বিভিন্ন পরিক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে সময়ক্ষেপণ করে ওই ক্লিনিকেই সিজার করে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছেন। অফিস চলাকালীন সময়ে আগত রোগীর ক্ষেত্রেও একই পদ্ধতিতে সময়ক্ষেপণ করা হয়।

পরে অফিস সময় শেষ হয়েছে অথবা অজ্ঞানের ডাক্তার না থাকার অজুহাতে রোগীকে বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে যেতে বাধ্য করা হয় স্বজনদের। এছাড়াও গোপন সমঝোতার মাধ্যমে অফিসে বসেই ক্লিনিক ও দালালদের মাধ্যমে নিয়ে আসা রোগীদের দেখে ব্যবস্থাপত্র দেন তিনি। 

জানা গেছে, চলতি বছরের মার্চ, এপ্রিল ও মে এই তিন মাসে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে ডাঃ মারুফা সিজার করেছেন মাত্র ১৯ টি। অথচ চাকুরী বিধিমালাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে তিন মাসে বেসরকারি ক্লিনিকে ডি এন্ড সি সহ সিজার  করেছেন ২২৩টি। এই অপারেশনগুলোর মধ্যে বেশকিছু সিজার অফিস সময়ের মধ্যে করা হয়। এবং একই দিনে আইডিয়াল ক্লিনিকে ৫থেকে ৭টি সিজার করার রেকর্ড রয়েছে।

গত মার্চ মাসে তিনি মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে ৪ টি সিজার করলেও বেসরকারি ক্লিনিকে করেছেন ৮০ টি অপারেশন। এপ্রিলে মাতৃসদনে ৮ টি সিজার করলেও প্রাইভেট ক্লিনিকে করেছেন ৭৮ টি এবং মে মাসে বেসরকারি ক্লিনিক এ  সিজার, হিসট্রেকটমি ও ডি এন্ড সি সহ ৬৫ টি অপারেশন করলেও মাতৃসদনে সিজার করেছেন মাত্র ৭টি। প্রতিটি সিজারের বিপরীতে বেসরকারী ক্লিনিক থেকে ২৫০০ থেকে ৩০০০ টাকা পেয়ে থাকেন। 

খোঁজ নিয়ে আরও জানা গেছে, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে এ্যানেস্থেসিয়া চিকিৎসকের জন্য স্থায়ী কোন পদ নেই। তবে এ সমস্যা সমাধানের বিকল্প হিসেবে অনকলে এ্যানেস্থিয়া দেয়ার দায়িত্ব পালন করার কথা ভুরুঙ্গামারী উপজেলায় কর্মরত এমওএমসিএইচএন্ডএফপি ডাঃ জি.এম আরিফের।তবে একই পদে তিনি নাগেশ্বরী উপজেলারও অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এ ব্যাপারে ডাঃ জি.এম আরিফ  জানান,সিজারের জন্য কল না পেলেতো আমার করার কিছুই নেই। 

অফিস সময়ের পর প্রাইভেট প্রাকটিস করার বৈধতা রয়েছে জানিয়ে মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মারুফা আক্তার জাহান বলেন, এ্যানেস্থেসিয়া চিকিৎসকের সংকট নেই। তবে নরমাল ডেলিভারির দিকেই তারা বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। 

সবেমাত্র যোগদান করার কথা জানিয়ে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ পরিচালক মীর রফিকুল ইসলাম বলেন, মেডিকেল অফিসারের ক্যাম্পাসের বাহিরে প্রাইভেট প্রাকটিস করার নিয়ম নেই।বিষয়টি খতিয়ে দেখার কথা জানান তিনি।

নব যুগান্তর /এসএম

বিষয়

*** 'নব যুগান্তর' সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আপনার ব্যক্তিত্ব প্রকাশ করে এবং এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ ***

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন>>>

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close