আজ মঙ্গলবার | ৭ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি | ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | হেমন্তকাল
বিজ্ঞপ্তি
  • সারাদেশে সংবাদদাতা ও বিঞ্জাপন প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। ই-মেইল করুন- hrd.nobojugantor@gmail.com
আক্রান্ত

সুস্থ

মৃত্যু

  • জেলা সমূহের তথ্য
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
সাহিত্য পাতা

আজকাল : সাদমান সাঈদী সামিন

আজকাল, একা থাকতে ভালো লাগে। ভিড়ের মধ্যে নিঃসঙ্গ হতে ইচ্ছে হয়। কাউকে কাছে আসতে দিতে ইচ্ছে করে না, নিজে থেকে কারোর সামনে দাঁড়াতেও ইচ্ছে করে না। বাড়াবাড়ি অসুস্থতায় মুখ থুবড়ে পড়লেও কারো হাত ধরে উঠে দাঁড়াতে ইচ্ছে করে না। বিশ্বাসে ভয় আর ভরসায় অভক্তি নামক অসুখটা আমার আর পাঁচজন অন্তরে-বাইরে সুস্থ, উজ্জীবিত, প্রাণোচ্ছল মানুষের মতো ভালো থাকায় একটা কারফিউ জারি করেছে। সে কারফিউ শিথিল হয়না, বরং আরও চেপে বসে আমার মাথায়।

আজকাল বাড়িতে আত্মীয়-স্বজনের উপস্থিতি বিরক্তি নিয়ে আসে। ‘কেমন আছিস’, ‘কেমন চলছে দিনকাল’, ‘ভবিষ্যত পরিকল্পনা কতদূর’ ইত্যাদি প্রশ্নের জবাবে কিছু মাথায় আসে না। জীবনের ধূলোবালিতে অজস্রবার অজস্রভাবে মাখামাখি করতে করতে, হারতে হারতে, হারাতে হারাতে আমরা কতগুলো অবাঞ্ছিত প্রশ্নের সামনে দাঁড়িয়ে পড়েছি। যাদের উত্তর আমরা খুঁজতে খুঁজতে ক্লান্ত। তাই উত্তর খোঁজা বন্ধ করে আমরা প্রশ্নকর্তাকে এড়িয়ে যেতে বেশি পছন্দ করি।

Advertisements

মানসিক, শারীরিক টানাপোড়েনের বেয়নেটের সামনে দাঁড়িয়ে একটা গোটা জেনারেশন। তারা একা থাকতে ভালোবাসে। সোশ্যাল মিডিয়ায় মুখে হাসি নিয়ে দুঃখের পোষ্ট শেয়ার আর কাঁদতে কাঁদতে পেটফাটা হাসির পোস্ট শেয়ার করে। ভার্চুয়াল বন্ধু বানাতে বানাতে কখন যেন সত্যিকারের বন্ধুত্বের সংজ্ঞা ভুলে গেছে জেনারেশন টা। একাকিত্বে ভুগতে ভুগতে তাদের কাউকে ভালো লাগে না, সহ্য হয় না। মনের কথা বলার কোনো লোক নেই, দুঃখ বিলাসের জন্য কোনো কাঁধ নেই, গাড্ডায় পড়া থেকে বাঁচিয়ে তোলার জন্য কোনো হাত নেই, ঘুমের মধ্যে দুঃস্বপ্ন দেখে সবটা জানানোর কোনো লোক নেই, ট্যাক্সির ব্যাকসিটে বসে শহর দেখতে দেখতে জড়িয়ে ধরার মতো একটা হাত নেই।

আমার মা বলেন, আগে নাকি যৌথ পরিবারের বাহুল্য ছিল। তাদের মধ্যে একতা ছিল। ভাগাভাগি করে খাওয়া দাওয়া, বিকেল বেলা মা-পাশের বাসার আন্টিদের আড্ডার আসর বসতো, আচার খাওয়া, হাসা হাসির কল্লোল উঠতো, রাতে সব্বাই মিলে পাত পেড়ে খেতে বসতো। বাচ্চারা লুকোচুরি, কানামাছি, গোল্লাছুট, কুমির ডাঙা খেলতো, সন্ধ্যেবেলায় জোড়ে জোড়ে পড়াশোনার আওয়াজ আসতো। এখন নিউক্লিয়ার ফ্যামিলি একাকীত্ব আর ডিপ্রেশন প্লেটে সাজিয়ে রাখে।

Advertisements

এই জেনারেশন কখনো একসাথে দশ-বারো জন মানুষের সাথে থাকার আনন্দ করতে পারেনি, নানুর থেকে গল্প শুনে ঘুমোতে যেতে পারেনি, লোডশেডিংয়ের সময় ছাদে বসে পাশের বাড়ির সাথে গল্পে মাততে পারেনি, মোবাইল গেম ছেড়ে মাঠে ছোটাছুটি করে গোল্লাছুট খেলতে পারেনি।

অযথা বাতুলতা, পরিচিত ও বন্ধুদের মধ্যেকার পাকদন্ডী, আত্মীয় স্বজনের কলিং বেলের ঘ্যানঘ্যানানি, রাস্তায় চেনা মানুষের সাথে দুদন্ড হেসে কথা বলা, সবাইকে নিয়ে ভালো থাকা, ভালো রাখাটা বড়ো বিড়ম্বনার, এদের কাছে।

ভালো থাকতে গেলে যে ভালো রাখাটাও জরুরী, সেটা এরা জানে না। দেখনদারির এই বিচ্ছিরি সমাজে নিউক্লিয়ার, একা, প্রাচুর্য- এই সবটা হয়তো প্রয়োজন। কিন্তু, ভালোবাসা আর একতা না থাকলে প্রিয়জন আর প্রয়োজনের মাঝের প্রাচীরটা ভেঙে পড়ে। আর ভেঙে পড়া ব্যাপারটা, সেটা কখনো সুখের হয় না প্রিয়!!!

বিষয়

*** 'নব যুগান্তর' সব ধরনের আলোচনা-সমালোচনা সাদরে গ্রহণ ও উৎসাহিত করে। অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য পরিহার করুন। এটা আপনার ব্যক্তিত্ব প্রকাশ করে এবং এটা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ ***

6
খেলাপি ঋণ এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে- আপনি কি মনে করেন এই অর্থ উদ্ধারে সরকারের উদ্যোগ যথেষ্ট?

ধন্যবাদ! আপনার মন্তব্যের জন্য।

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন>>>

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close